এখনও বর্ণবাদ!

2a852dacb60795a8b1935797cf7d6ddf-57fb4774578efহারুন উর রশীদ:
বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা ও সাব্বির রহমানকে জরিমানা করা হয়েছে ম্যাচ ফির ২০ শতাংশ । আর ইংলিশ অধিনায়ক জশ বাটলারকে করা হয়েছে শুধু তিরস্কার ! দু’পক্ষই কোড অব কন্ডাক্ট ভেঙেছেন বলে রায় দিয়েছে আইসিসি। তবে গুরুদন্ড হলো মাশরাফি-সাব্বিরদের। কিন্তু ইংলিশ সহ অধিনায়ক স্টোকস যে তামিমকে মারতে গেলো তার কী বিচার হবে! তার বিচার হবে না। কারণ সে সাদা। তার গায়ের রঙ সাদা।
বাটলার অশালীন মন্তব্য করেছন এটা প্রমানিত। তিনি রীতিমত খিস্তি করেছেন। আর মাশরাফিরা নাকি বাটলারের উইকেট খাওয়ার পর উদযাপনটা একটু বেশি করেছেন। ধরেই নিলাম করেছেন। তাই বলে সাদা ছেলেকে শুধু সামান্য তিরস্কার-ভর্ৎসনা! আর কালো ছেলেদের ম্যাচ ফি’র ২০ ভাগ টাকা জরিমানা! বিষয়টা হলো লঘু পাপে গুরুদন্ড আর গুরু পাপে লঘুদন্ড। হায়! বাটলার খিস্তি খেউড় করলেও তার দায় নাকি মাশরাফি সাব্বিরদের।
আইসিসি’র সংবাদ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী দুই বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা ভেঙেছেন কোড অব কন্ডাক্ট বিধিমালার ২.১.৭ ধারা। এই ধারা তখনই ভঙ্গ হবে যখন আন্তর্জাতিক ম্যাচে কোনও ব্যাটসম্যান আউট হওয়ার পরই কোনও ক্রিকেটার তাকে লক্ষ্য করে এমন কোনও ভাষা, দৈহিক অঙ্গভঙ্গি করা-যা ঐ ব্যাটসম্যানকে অযাচিত আচরণে উস্কে দেবে। এখানে মাত্রাতিরিক্ত বাঁধনহারা উদযাপনের কথাটিও উল্লেখ করা আছে। আছে ব্যাটসম্যানকে মৌখিকভাবে উস্কে দেওয়ার বিষয়টিও ।
বাটলার দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন বিধিমালা ২.১.৪ ভঙ্গের। যা আন্তর্জাতিক ম্যাচে এমন ভাষা ও অঙ্গভঙ্গি ব্যবহার যেটা খুবই অশালীন ও অপমানজনক।
ইংল্যান্ডের ব্যাটিং ইনিংসে ২৮ তম ওভারে তাসকিনের দ্বিতীয় বলটি গিয়ে আঘাত হানে ইংলিশ অধিনায়ক জশ বাটলারের পায়ে। তাসকিন সজোরে আবেদন জানালেন কিন্তু আম্পায়ার আউট দিলেন না। ফলে আম্পায়েরের দেয়া ও সিদ্ধান্ত রিভিউ চাওয়া হলো। থার্ড আম্পায়ার তাঁর সিদ্ধান্তে জানালেন বাটলার আউট হয়ে গেছেন। আর তাতেই উল্লাসের ফেটে পড়লো গোটা বাংলাদেশ শিবির। বাটলারের আউটের পরেই মুলত ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় সফরকারী ইংলিশরা।
ওই আউটটি এমনিতেই মেনে নিতে পারছিলেন না বাটলার। তার উপরে আবার যখন বাংলাদেশ দল উল্লাস করলো বাটলার রেগে গিয়ে মামুদুল্লাহ রিয়াদের সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়েন। করেন অশালীন মন্তব্য। আসলে ব্রিটিশ বটলার ভুলেই গিয়েছিল যে এই উপমহাদেশে তাদের আগ্রাসনের অবসান হয়েছে বহু আগেই। ১৯৪৭ সালে। বাটলারের এই ভুলে যাওয়ার কারণেই পুরনো রোগের আচরণ তাকে পেয়ে বসে। বাটলার ভেবেছিলেন তিনি ক্লাইভ জাতীয় কিছু। তাই তার আচরণ হয়ে ওঠে ক্লাউনের মতো।

skysports-jos-buttler-england-odi-bangladesh-angry_3805322
আমার কথা হলো এধরণের উল্লাসতো ক্রিকেটে সাধারণ দৃশ্য। আর রিভিউরের কারণে টাইগাররা সব সমবেত হয়েছিলো। এমন নয় যে প্রথমেই আউট দেয়া হয়েছে আর তারা সমবেত হয়ে উল্লাস করেছে। রিভিউরে কারণে এক জায়গায় থাকায় হয়তো তা একটু বেশি হয়েছে। কিন্তু বাটলার যা করেছে তা হলো অভদ্র আচরণ। চুড়ান্ত বেয়াদবি। কিন্তু হায়! এখন সব দায় বাংলাদেশ দলের। কারন আম্পায়ারদের মাথায় এখানো বর্ণবাদ! আইসিসি এখনো বর্ণবাদের ভুতের আছরে আছে।
আর শুধু বাটলারই নন, বড় কাণ্ড ঘটিয়েছিলেন ইংলিশ সহ অধিনায়ক বেন স্টোকসও। ম্যাচ শেষে করমর্দনের সময় আরেকটি বিতর্কিত ঘটনার জন্ম দিয়েছেন বেন স্টোকস। তামিমের সঙ্গে বাক-বিতণ্ডায় জড়ান ইংলিশ সহ অধিনায়ক। তিনি তামিমকে রীতিমত মারতে তেড়ে যান। যদিও নিজের টুইটারে এর ব্যাখ্যায় তিনি বলেছেন করমর্দনের সময় ইংলিশদের কাঁধে ধাক্কা দিয়েছিলেন তামিম ইকবাল! কিন্তু ভিডিওতে স্পষ্ট যে ইংলিশরাই কনুইয়ের গুঁতো দিয়েছে।
কিন্তু এটার কোনো বিচার হবেনা। ব্যখ্যা সোজা। ওটাতো ম্যাচের পরে হয়েছে। তাই নাকি কোড অব কন্ডাক্টে’র মধ্যে পরে না। আসলে কোড অব কন্ডাক্ট হচ্ছে ওই সাদাদের রক্ষার জন্য। যদি এমন কিছু টাইগাররা করতো তাহলে আইসিসি তখনই নতুন কোড অব কন্ডাক্ট আবিস্কার করে টাইগারদের ফাঁসি দেয়ার ব্যবস্থা করতো।
আসলে ব্রিটিশ- ইংলিশদের হারিয়েছে এটাই যেন অন্যায় টাইগারদের- বাংলাদেশ দলের। সাদাদের কালোরা হারাবে কেন? এই দু:সাহস দেখাবে কেন? সেজন্যই শাস্তি পেতে হয়েছে মাশরাফি- সাব্বিরকে। কিন্তু আধিপত্যবাদের দিন শেষ। বর্ণবাদী আচরণের দিনও আর থাকবেনা। টাইগাররা আবারো মাঠেই জবাব দেবে।
কলাবাগান, ঢাকা
১১.১০.১৬

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s