রোজিনা যা করেছে আমি তা করতাম না: অন্বেষা ব্যানার্জী

15094295_1418014458210423_4062379856290364513_n

হারুন উর রশীদ:
কোলকাতার ‘এই সময়’-এর সাংবাদিক অন্বেষা ব্যানার্জী যারপরনাই অবাক হয়েছেন, যখন শুনছেন যে তার ড্রাফট (লেখা) করা রিপোর্ট বাংলাদেশের ‘প্রথম আলো’ উপসম্পাদকীয় হিসেবে ছেপেছে। তিনি জানিয়েছেন, প্রথম আলোর সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম এবং তিনি মার্কিন নির্বাচনের সময় একই সঙ্গে ছিলেন। প্রথম আলোর রোজিনা এবং তিনি তথ্য শেয়ার করতেন। কিন্তু রোজিনা যে তার(অন্বেষা) লেখাই প্রায় হুবহু তার পত্রিকা প্রথম আলোতে পাঠিয়েছেন তা তার জানা ছিলোনা। আর প্রথম আলোর তা উপসম্পাদকীয় হিসেবে ছাপা কোনোভাবেই ঠিক হয়নি। কারণ উপসম্পাদকীয় শতভাগ মৌলিক কাজ। ষেখানে শেয়ারিং-এর প্রশ্ন ওঠেনা।
অন্বেষা ব্যানার্জী বলেন, ‘রিপোর্ট করতে গিয়ে তথ্য শেয়ার আমরা করতাম। রোজিনারও ইনপুট থাকতো। আমি প্রথমে লিখে আমার পত্রিকায় পাঠাতাম। এবং কপি রোজিনাকে দিতাম। কিন্তু রোজিনা যে সেই ড্রাফটই পাঠিয়ে দিতো তা আমার জানা ছিলোনা। তার উচিৎ ছিলো আমার ড্রাফট-এর তথ্য নিয়ে নতুন করে লেখা। সেটা না করায় রোজিনার সমস্যা হচ্ছে।’
রোজিনা যদি ড্রাফট করতো তাহলে সেই ড্রাফট আপনি আপনার পত্রিকায় পাঠাতেন কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,‘ না আমি এটা করতাম না। আমি তথ্য নিয়ে পুরোটাই নতুন করে লিখতাম। আর আমার অফিসও অন্যের করা ড্রাফট গ্রহণ করতো না, ছাপতোনা। যদি এমন হতো অন্যের ড্রাফট পাঠাতেই হবে তাহলে আমি অফিসকে বলতাম এবং সেটা আমার নামে ছাপা হতোনা। ছাপার প্রয়োজন হলে লেখা তার নামে অথবা সৌজন্যে ছাপা হতো। আমি কন্টেন্ট শেয়ার করি কেনো তথ্য মিস করলাম কিনা তা চেক করতে। ভাষাতো আর শেয়ার করা যায়না। ’
আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন,‘ আর আমার ড্রাফট করা রিপোর্ট যখন প্রথম আলো উপসম্পাদকীয় হিসেবে ছেপেছে বিষয়টি আরো বিতর্কিত হয়ে গেছে। আমিতো অবাকই হয়েছি। উপসম্পাদকীয়তো পুরোপুরি মৌলিক লেখা হবে। এখানে রোজিনার সমস্যা হওয়ারই কথা।’

This slideshow requires JavaScript.


অন্বেষার কাছে ইনবক্সে প্রথম আলোর রোজিনা ইসলামের দু’টি উপসম্পাদকীয়’র প্রিন্ট ভার্সনের ছবি পঠানো হয়। তিনি এরপর তার লেখার সঙ্গে মিলিয়ে জানান, ‘ ওই দু’টিই আমার লেখা(ড্রাফট)। তবে রোজিনা কিছুটা পরিবর্তন করেছে(শুরুর দিকে)।’
আরেক প্রশ্নের জবাবে অন্বেষা বলেন,‘ যে কথা হচ্ছে যে রোজিনা plagiarism করেছে, ঠিক সেটা নয়, তবে এক ধরণের কপি-পেস্ট হয়েছে তা বলা যায়।’

তিনি আরও জানান,‘ তারা দু’জনই ইন্টারন্যাশনাল ভিজিটর লিডারশিপ প্রোগ্রামের( আইভিএলপি) আওতায় নির্বাচনের সময় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ছিলেন এবং একই সঙ্গে ছিলেন। অন্বেষা জানান,‘ আমার কোলকাতা অফিসে প্রতিদিন রিপোর্ট পাঠাতে হতো। এমনকি নির্বাচনের দিন আমি ছয়টি রিপোর্ট পাঠিয়েছি। তবে রোজিনা মাঝে মাঝে তার ঢাকার অফিসে রিপোর্ট পাঠাতো। প্রতিদিন নয়।’
অন্বেষা ব্যানার্জী এরইমধ্যে তার ফেসবুক পোস্টে রোজিনার সঙ্গে তার তথ্য শেয়ারিং এবং একসঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে কাজ করার কথা জনিয়েছেন। সেখানে রিপোর্ট দু’টি যে অন্বেষার ড্রাফট করা তা বলেছেন। তবে ওই ফেসবুক পোস্ট নিয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন,‘ পোস্ট দেয়ার সময় আমি জানতাম না যে প্রথম আলো তা রোজিনার উপসম্পাদকীয় হিসেবে ছেপেছে। আর এও জানতাম না যে রোজিনা প্রায় হুবহু আমার ড্রাফটই পাঠিয়েছে। তবে বন্ধু হিসেবে আমি ওর ভালো চাই। ওর কোনো ক্ষতি হোক আমি তা চাইনা।’
প্রসঙ্গত, প্রথম আলো বুধবার সন্ধ্যায় দু:খ প্রকাশ করে রোজিনা ইসলামের ‘হিলারি ও ট্রাম্প দুজনকেই অপছন্দ!’ এবং ‘যেভাবে ফ্লোরিডা জয়-পরাজয় গড়ে দিল’ শিরোনামে ৮ ও ১৯ নভেম্বর প্রকাশিত দুটি উপসম্পাদকীয় প্রত্যাহার করে নিয়েছে।

প্রথম আলোর রোজিনা ইসলামের সঙ্গেও আমার কথা হয়েছে। তবে তিনি যা বলেছেন তা ব্যক্তিগত পর্যায়ে বলেছেন। তাই আপনাদের সঙ্গে তা শেয়ার করা গেলো না।

অন্বেষা ব্যানার্জীর সাক্ষাৎকার শুনুন…

আরও পড়ুন…
‘প্রথম আলো’র দু:খ প্রকাশ, কপি-পেস্ট কলাম প্রত্যাহার, তারপর?
কপি-পেস্টের কাঠগড়ায় শীর্ষ দৈনিক ‘প্রথম আলো’?

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s